পোশাকে র’ক্তের দাগ, ছাত্রীকে ক্লাস থেকে বের দেয়ায় লজ্জায় আত্মহ’ত্যা

স্কুলের শ্রেণিকক্ষে সহপাঠীদের সঙ্গে থাকা অবস্থায় পিরিয়ড শুরু হয় কেনিয়ার এক ছাত্রীর। এমনকি তার পিরিয়ডের র’ক্ত পোশাকেও লেগে যায়। সেই ঘটনায় শিক্ষকের বকুনিতে লজ্জায় মুষড়ে পড়ে আত্মহ’ত্যা করেছে ওই স্কুলছাত্রী।

কেনিয়ার স্থানীয় এক গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৪ বছর বয়সী ওই ছাত্রীর মায়ের দাবি, স্কুলের মধ্যেই এ ঘটনায় একজন শিক্ষক তার মেয়েকে অপমান করেন। আর বিষয়টি সহ্য করতে না পেরে লজ্জায় তার মেয়ে বাড়িতে এসে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহ’ত্যা করেছে।

এ ঘটনার জেরে ওই স্কুলের সামনে বিক্ষো’ভ করেছে দুই শতাধিক অভিভাবক। বিক্ষো’ভ থামাতে কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়েছে পুলিশ। অথচ, ২০১৭ সালেই কেনিয়ায় আইন প্রণয়ন করে বলা হয়, দেশের সকল স্কুলে ফ্রি স্যানিটারি টাওয়াল থাকবে। তার পরেও কেন এ ধরনের ঘটনা ঘটল, বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে পুলিশ।

নি’হত শিক্ষার্থীর মায়ের দাবি, ওই শিক্ষক তার মেয়েকে নোংরা বলেছেন। নাইরোবির কাবিয়ানগেক এলাকার ওই স্কুল থেকে এ ঘটনায় তার মেয়েকে ওইদিন বের করে দেওয়ারও অভিযোগ করেন তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার।

ওই নারীর দাবি, পিরিয়ড শুরুর সময় তার মেয়ের কাছে কোনো ধরনের প্যাড ছিল না। অথচ শিক্ষক তাকে ক্লাস থেকে বের করে দিয়ে বাইরে দাঁড় করিয়ে রাখেন। এ ঘটনার পর মেয়ে আমার বাড়িতে ফিরে এসে আমার কাছে সব খুলে বলে। তারপর সে আত্মহ’ত্যা করেছে।

এ ঘটনায় পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছে কিশোরীর পরিবার।